HomeUncategorizedশীতের শুরুতে হিলিতে কাঁচা মরিচসহ সব ধরনের সবজির দাম কমেছে

শীতের শুরুতে হিলিতে কাঁচা মরিচসহ সব ধরনের সবজির দাম কমেছে

print news

গোলাম রব্বানী,হিলি প্রতিনিধিঃ
শীতের শুরুতে দিনাজপুরের হিলিতে কমতে শুরু করেছে সহ সব ধরনের সবজির দাম। ক্রেতারা বলছেন, প্রতিটি কাঁচা সবজির দাম কেজিতে কমেছে ২০ থেকে ৪০ টাকা পর্যন্ত। আর কাঁচা মরিচের দাম কমেছে কেজিতে ১০০ টাকা। এক সপ্তাহ আগে এসব পণ্যের দাম দ্বিগুণ ছিল।
খুচরা বিক্রেতারা জানান, বাজারে সরবরাহ বাড়ায় ও অবরোধের কারণে কাঁচা পণ্যগুলো মোকামে সময়মতো নিয়ে যেতে না পারার কারণে এসব পণ্যের দাম এখন অর্ধেকে নেমে এসেছে। এতে স্বস্তি ফিরে এসেছে সাধারণ ক্রেতাদের মাঝে।

বৃহস্পতিবার (৯ নভেম্বর) হাটবার হিলি বাজারে ক্রেতা-বিক্রেতাদের সাথে কথা বলে এমন তথ্য পাওয়া যায়।

হিলি কাঁচা বাজারে সবজির কিনতে আসা ফরহাদ হোসেন বলেন, আজ একটু কাঁচাবাজার করে স্বস্তি পেলাম। এক সপ্তাহ আগে প্রতিকেজি আলু কিনতে হয়েছিল ৬৫ টাকা কেজি দরে। আজ সেই আলু ৪৮ টাকা কেজি দরে কিনেছি। এ ভাবে প্রতিটি পণ্যের দামই কমেছে। তবে সবচেয়ে বেশি কমেছে কাঁচামরিচের দাম। ২০০ টাকা কেজির কাঁচামরিচ আজ হাটবার ৫০ টাকা দিয়ে হাপকেজি নিলাম।
ক্রেতা ইউসুব আলী বলেন, কিছুদিন ধরে তো সবজির দাম ছিল আকাশছোঁয়া।প্রতিকেজি বেগুন ছিল ৮০ টাকা কেজি, পেঁয়াজ ছিল ১০০ থেকে ১২০ টাকা কেজি, ফুলকাপির কেজি ছিল ১২০ টাকা। এখন সব পণ্যের দামই নাগালের মধ্যে এসেছে। প্রতিকেজি বেগুন কিনলাম ৩৫ টাকা কেজি দরে, পেঁয়াজ ৮০ টাকা কেজি দরে, ফুলকপি ৪০ টাকা কেজি দরে।
তিনি আরও বলেন, শাকসবজির দামও কমেছে। গত সপ্তাহে ৪ আঁটি পালংশাক ৩০ টাকা বিক্রি হলেও আজ বিক্রি হচ্ছে ২০ টাকা করে। এভাবে মুলাশাক, সরিষাশাকসহ সবধরনের শাকের দামই কমেছে।
খুচরা সবজি বিক্রেতা শাহিন বলেন, আমরা তো আর ইচ্ছে করে কমে দাম বাড়ায় না। বাজারে যখন সরবরাহ কম থাকে, তখন প্রতিটি কাঁচাপণ্যের দাম বাড়ে। আবার সরবরাহ বাড়লে দাম কমে। আমরা হয়তো কেজিতে ৫ থেকে ১০ টাকা লাভ রেখে বিক্রি করি।

পাইকারি আলুসহ সবজি বিক্রেতরা শেখ বিপ্লব বলেন, আমরা বাইরের মোকাম থেকে এসব কাঁচা পণ্য কিনে এনে খুচরা বিক্রেতাদের কাছে বিক্রি করে থাকি। মোকাম থেকে যে দামে কিনি তার সাথে পরিবহন খরচ, নিজের খরচ বাদ দিয়ে কেজিতে হয়তো ৫ টাকা লাভ রেখে বিক্রি করি।
তিনি আরও বলেন, ভারত থেকে আলু আসায় আলুর দাম কেজিতে প্রকারভেদে ১০ থেকে ১৫ টাকা কমেছে। আর অবরোধের কারণে সময়মতো এসব সবজি ঢাকাসহ অন্যান্য জায়গায় পাঠাতে না পারার কারণে মোকামেও দাম কমেছে। এছাড়া,শীতকালীন সবজি বাজারে উঠলে প্রথম দিকে দাম একটু চড়া থাকে। পরে ধীরে ধীরে কমে যায়। আমরা মোকামে কম দামে কিনলে কম দামেই বিক্রি করে থাকি।

এই বিভাগের আরো খবর

সর্বশেষ সংবাদ

দশ জনপ্রিয় সংবাদ