HomeUncategorizedহিলিতে কাঁচা মরিচসহ প্রতিটি সবজির দাম বাড়ছে

হিলিতে কাঁচা মরিচসহ প্রতিটি সবজির দাম বাড়ছে

print news
হিলি প্রতিনিধিঃ
এক সপ্তাহের ব্যাবধানে দিনাজপুরের হিলিতে কাঁচা মরিচসহ প্রতিটি সবজির দাম দ্বিগুন বেড়েছে। কাঁচা মরিচের দাম বেড়েছে কেজিতে ১২০ টাকা। গত সপ্তাহে শুক্রবার ( ২২ সেপ্টেম্বর) প্রতিকেজি কাঁচা মরিচ ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। আর আজ শুক্রবার ( ২৯ সপ্টম্বর) প্রতিকেজি কাঁচা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ২৪০ টাকা কেজি দরে। এভাব প্রতিটি সবজির দাম কেজিতে বেড়েছে ২০ থেকে ৩০ টাকা পর্যন্ত। সাধারণ ক্রেতারা বলছেন, লাগামহীন ভাব  কাঁচা সবিজর দাম বেড়ে যাওয়ায় তাদের সংসার চালানো দু¯র হয়ে পড়েছে। অন্যদিকে বিক্রেতারা বলছেন, সম্প্রতি টানা কয়েকদিন বষ্টির কারণে সবজির উৎপাদন কম হয়েছে। তাই বাজারে সরবরাহ কমেছে। তাই দাম বেড়েছে। বাজারর সরবরাহ বেড়ে গেলেই দাম স্বাভাবিক হয়ে আসবে।
আজ শুক্রবার ( ২৯ সেপ্টরম্বর) হিলি কাঁচা বাজারে সবজি ক্রেতা ও বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।
স্টেশনর রোডের জাকির হোসেন বলরন, আমি শ্রমিকের কাজ করি। বাজারর কাঁচা মরিচ কিনতে এসেছি।দাম শুনেইতো চেখ কপালে উঠলো। ২৫০ গ্রাম কাঁচা মরিচের দাম চাচ্ছে ৬০ টাকা। অর্থাৎ ২৪০ টাকা কেজি। অথচ গত শুক্রবারই ২৫০ গ্রাম কাঁচা মরিচ কিনেছিলাম ৩০ টাকা দিয়ে। তাই আজ ২৪ টাকা দিয়র ১০০ গ্রাম কাঁচা মরিচ কিনলাম।
সবজি ক্রেতা ফরহাদ ইসলাম বলেন, গত সপ্তাহের চেয়ে এই সপ্তাহে প্রতিটি কাঁচা সবজির দাম কেজিতে ২০ থেকে ৩০ টাকা বেড়েছে। গত সপ্তাহে প্রতিকেজি আলু ৪০ টাকা দরে বিক্রি হলেও আজ বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা কেজি দরে। ৩০ টাকা কেজি দরে পটল বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা কজি দরে। ৫০ টাকা কেজি দরে বেগুন বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকা কেজি দরে। ৩০ টাকা কেজি দরে ঢেঁড়শ বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা কেজি দরর। ৩০ টাকা কেজি দরে মিষ্টি কদু বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা কজি দরে। এভাবে প্রতিটি সবজির দাম কেজি প্রতি ২০ থেকে ৩০ টাকা বেড়েছে।
খুচরা সবজি বিক্রেতা শাহিন বলরন, আমরা পাইকারি ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে যেদামে কিনে আনি। তার থেকে কেজিতে ৫ থেকে ১০ টাকা লাভ রেখে বিক্রি করি। কাঁচা পণ্য অনেক সময় অবিক্রিত হয়ে থাকে। পঁচে নষ্ট হয়ে যায়। অনেক সময় ফেলে দিতে হয়। তাই ১০ টাকা পর্যন্ত  লাভ ধরে বিক্রি করতে হয়।
পাইকারি সবজি বিক্রেতা সাদ্দাম হোসেন বলেন,হিলি বাজারে যেসব কাঁচা সবজি বিক্রি হয়। সেসব আমাদের পাশের উপজেলা পাঁচবিবি বা বিরামপুর থেকে কিনে আনতে হয়। এমনকি কয়েকদিনের টানা বষ্টির কারণে ফসলের ক্ষেত পানিতে ডুবে থাকায় মোকামে সরবরাহ কমে গেছে। তাই দামও বেড়ে গেছে। আজ শুক্রবার ( ২৯ সেপ্টেম্বর) থেকে আকাশের অবস্থা একটু ভাল লক্ষ্য করা যাচ্ছে। আশা করছি ফসলের ক্ষেত থেকে পানি নেমে গেলেুই বাজারে সব্জির সরবরাহ বাড়বে। তখন দামও কমে আসবে।
খুচরা কাঁচামরিচ বিক্রেতা বিপ্লব শেখ বলেন,কাঁচা পণ্য সকালে বাড়ে,বিকেলে কমে।আমরা বেশি দামে কিনলেই বেশি দামে বিক্রি করি।আবার কম দামে কিনলে কম দামেই বিক্রি করে থাকি।সরবরাহ বেশি থাকলে দাম কিছুটা কম হয়। সরবরাহ বদ্ধি হলে কাঁচা মরিচের দাম কমতে শুরু করবে।

এই বিভাগের আরো খবর

সর্বশেষ সংবাদ

দশ জনপ্রিয় সংবাদ