HomeUncategorizedহিলি সীমান্তের শুন্যরেখায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত

হিলি সীমান্তের শুন্যরেখায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত

print news

৫২’র ভাষা আন্দোলনে যাদের বুকের তাজা রক্তের বিনিময়ে পেয়েছি মা এর ভাষা বাংলা ভাষা। সেই বীর শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানাতে পুস্পস্তবক অর্পণ করতে দিনাজপুরের হিলি সীমান্তের শুন্য রেখায় জড়ো হয়েছিলেন দু’দেশের বাংলাভাষীরা। একে অপরকে ফুলের স্তবক দিয়ে জানান শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা। তারা একে অপরের সাথে পুস্পস্তাবক অর্পনের পাশাপাশি কুশল বিনিময় করেন।

এপারে বাংলা ওপারে বাংলা। মাঝখানে বাঁধা শুধু কাটা তারের বেড়া। ২০১৫ সাল থেকে প্রতি বছর ২১ শে ফেব্রুয়ারিতে দু’দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে দেখতে আসেন বাংলাভাষা প্রেমীরা। এবারও তার ব্যতিক্রম ঘটেনি। সীমান্তের দু’পাশে শত শত মানুষ তা উপভোগ করেন।

বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারী) সকাল ১১ টায় হিলি সীমান্তের জিরো পয়েন্টের শুন্য রেখায় ভারতের পক্ষে বালুরঘাট উজ্জীবন সোসাইটি ও বালুরঘাট টু বাংলাদেশ ভায়া মেঘালয় করিডোর কমিমি,বাংলাদেশের হাকিমপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও সাপ্তাহিক আলোকিত সীমান্ত পত্রিকার সম্পাদকের কাছে ফুলের স্তবক হস্তান্তর করেন। পক্ষান্তরে বাংলাদেশের হিলি মুক্তিযোদ্ধা সংসদ,মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড এবং সাপ্তাহিক আলোকিত সীমান্ত ভারতের ওই সংগঠনের কাছে ফুলের স্তবক হস্তান্তর করেন। এরপর তারা নিজ নিজ দেশের শহীদ বেদীতে ফুলের স্তবকগুলি অর্পন করেন।
এসময় সেখানে ভারতের বালুরঘাট টু বাংলাদেশ ভায়া মেঘালয় করিডোর কমিটির আহবায়ক নবকুমার দাশ, উজ্জীবন সোসাইটির সম্পাদক সুরুজ দাশ, বাংলাদেশের হাকিমপুর হিলি পৌর মেয়র জামিল হোসেন চলন্ত, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান শাহীনুর রেজা শাহিন, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার লিয়াকত আলী, সাপ্তাহিক আলোকিত সীমান্ত পত্রিকার প্রকাশক ও প্রেসক্লাবের সভাপতি মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বুলু ও মুক্তিযোদ্ধাসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন।
আয়োজকরা জানান, দুই বাংলার মধ্যে সৌহাদ্য,ম্প্রীতিসহ ভাষাপ্রেমীদের মেলবন্ধন অটুট রাখতে ২০১৫ সাল থেকে হিলি সীমান্তে দুই বাংলার উদ্যোগে এমন আয়োজন করে আসছে। সামনের দিনে আরো বড় পরিসরে রাষ্ট্রীয় ভাবে সীমান্তের শুন্যরেখায় এই অনুষ্ঠানের আয়োজনের কথা জনানা তারা।

এই বিভাগের আরো খবর

সর্বশেষ সংবাদ

দশ জনপ্রিয় সংবাদ